Spread the love

” ৩য় সংখ্যা নভেম্বর”১৯. 
                🌱সূচীপত্র🌱
✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️✍️
১)গৌতম বাড়ই–বেহালা, কোলকাতা
২) রেহানা চৌধুরী – ঢাকা, বাংলাদেশ
৩) কামরুল ইসলাম সিয়াম – বাংলাদেশ
৪) অঞ্জলি দে নন্দী, মম
৫) বিপ্লব গোস্বামী –
৬) দালান জাহান- টাঙ্গাইল, বাংলাদেশ
৭) রীতা ব্যানার্জী – মধ্যমগ্রাম, কোলকাতা
৮) অলোক নস্কর –
৯) আবু সাঈদ – শেরপুর সদর, বাংলাদেশ
১০) কবি ডা: মিজান মাওলা
১১) শ্যামল অধিকারী – কাথী – প:ব:
১২) কৃষ্ণপদ ঘোষ –
১৩) পারমিতা ভট্টাচার্য্য
১৪) আবদুস সালাম –
১৫) মুহাম্মাদ শামসুল আরেফীন –
১৬) সুদীপ্ত বিশ্বাসের তিনটি কবিতা
১৭) রাজু দাস – কলকাতা
১৮) অগ্নিমিত্র (ডা. সায়ন ভট্টাচার্য্য)
১৯) তাপসী ভট্টাচার্য্য – বহরমপুর, প:ব:
২০) নাঈম ইসলাম বাঙালি –
২১) নদেরচাঁদ হাজরা –
২২) রূপক বিশ্বাসের গুচ্ছ কবিতা – সাহেবগঞ্জ, ঝাড়খণ্ড
২৩) সাজু আহমেদ
২৪) এম সফিউল্লাহ –
২৫) সত্যদেব পতি
২৬) আল-আমিন (বিশ্বাসী)
২৭) টুলটুল দেবনাথ
২৮) অনুপ কুমার সরকার
২৯) কাছেন রাখাইন
৩০) তপন কান্তি মুখার্জি
৩১) একাদশী চৌধুরী
৩২) সুব্রত ভট্টাচার্য (ঋকতান)
৩৩) কনককান্তি মজুমদার
৩৪) ফরহাদ হোসেন
৩৫) রণজিৎ দাস
৩৬) পার্থদীপ সমাজদার
৩৭) চন্দনা পাহাড়ী
৩৮) শৌভিক
৩৯) সাইবানী বর্মন
৪০) ভারতী ব্যানার্জি
৪১) শ্যামল কুমার রায়
৪২) সত্যবান তন্তুবায়
৪৩) অর্পিতা দাশগুপ্ত ঠাকুর
৪৪) শ্যামল চট্টোপাধ্যায়
৪৫) সুশান্ত মোহন চট্টোপাধ্যায়
৪৬) অলকেশ মাইতি
৪৭) ছাব্বির আহমেদ
৪৮) রূপালী গোস্বামী
৪৯) সায়নী সরকার
৫০) বন্দনা কুণ্ডু
৫১) মেহেদী হাসান রনি
৫২) স্মরজিৎ দত্ত
৫৩) সুজিত চট্টোপাধ্যায়
৫৪) প্রদীপ কুমার সামন্ত
৫৫) সৌমেন দাস
৫৬) রাজেশ চক্রবর্তী
৫৭) ফারুক বিন কফিল
৫৮) মুস্তারী বেগম
৫৯) রবি শঙ্কর দাস
৬০) সত্যেন্দ্রনাথ পাইন
৬১) ইয়াসির আজিজ
৬২) নৃপেন্দ্রনাথ মহন্ত
৬৩) বীরু
৬৪) বিশ্বজিৎ কর্মকার
৬৫) বিশ্বজিৎ প্রামাণিক
৬৬) সুশান্ত মোহন চট্টোপাধ্যায়
৬৭) সন্তু বিশ্বাস
৬৮) অসীম সরকার
৬৯) ফেরদৌস খানম রীনা
৭০) রবি শংকর দাস
৭১) নুর ইসলাম
৭২) মো নিশাত হোসেন
৭৩) কাজী মুহাম্মাদ রাকিবুল হাসান
৭৪) সরস্বতী সরকার
৭৫) দ্বিতীয়া প্রামাণিক
৭৬) মিঠুন পাল
৭৭) সোমা বৈদ্য
৭৮) রেবা সাঁতরা
৭৯) মহাদেব নন্দী
৮০) সজল বসু রায়
৮১) পৃথ্বীমিতা দাস
৮২) হিমাদ্রী চ্যাটার্জি
৮৩) সাজিদ
৮৪) সুরভী জাহাঙ্গীর – ঢাকা, বাংলাদেশ
৮৫) হৃদয় আহমেদ খান
৮৬) শ্রাবন্তী মিশ্র
৮৭) সুজাতা মিশ্র 
৮৮) শুদ্ধ শীল ঘোষ 
৮৯) তপন কুমার তপু 
৯০) ঋদেনদীক মিত্র
৯১) রাজিত বন্দোপাধ্যায় – জামশেদপুর, ঝাড়খণ্ড 
৯২) বৈশাখী চক্রবর্তী 
৯৩) চিনাংশু গোস্বামী 
৯৪) সাথী মন্ডল 
৯৫) শচীদুলাল পাল
৯৬) তন্ময় সিংহ রায় 
৯৭) চিন্ময় মহান্তী 
৯৮) গৌতম রাজোয়ার 
৯৯) অজয় ঋষিদাস 
১০০) মধুসূদন মাজী 
১০১) সত্যব্রত দাস
১০২) ক্ষ্যাপা রাজা
১০৩) শীষ মুহাম্মাদ 
১০৪) তরুন দাস
১০৫) মুরারি মোহন চক্রবর্তী 
১০৬) শম্ভুনাথ রাউত
১০৭) শিলাবৃষ্টি
১০৮) হিমাদ্রী চ্যাটার্জি
১০৯) বাবলু সরকার
১১০) সৈয়দ শিষ মহাম্মদ
১১১) ইছামতী সেন
১১২) শিপ্রা দে 
১১৩) শ্যামল মণ্ডল 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You missed

পুনরাবৃত্তি ©অঞ্জলি দে নন্দী, মম আমার বয়স তখন অধিক নহে। বিদ্যালয়ের নিম্ন শ্রেণীর ছাত্রী। বঙ্গ ভাষায় পাঠ্যরূপে সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায় মহাশয়ের কপালকুণ্ডলার কিয়দংশ পাঠ করান হইত। আমি শ্রেণীর খুব মেধাবিনী পঠিয়ত্রী ছিলুম। আমি প্রথম স্থান অধিকার করিয়া প্রত্যেক বৎসর ঊর্ধ্ব শ্রেণীতে গমন করিতুম। ঐ পাঠ্যের এক পত্রে বঙ্কিমচন্দ্র মহাশয় কতৃক লিখিত হইয়াছিল, ” তুমি অধম তাই বলিয়া আমি উত্তম না হইব কেন? ” পাঠ্যে ওই অংশটির নাম ছিল, ‘সাগর সঙ্গমে নবকুমার’। যাহা হউক- আমার চিত্তে এই বাক্যটি গভীরভাবে রেখাপাত করিয়াছিল। আমার সহিত উক্ত সময় নবকুমার বাবুর সহিত যেইরূপ ঘটিয়াছিল ঐরূপ কিছু ঘটিলে আমি তাহাকে ঠিক ঐরূপভাবেই গ্রহণ করিতুম। কিন্তু এই সময়ে আমি উহাকে পরিবর্তীত করিয়া লইয়াছি। এইরূপে – তুমি অতিশয় অধম সেইহেতু বলপূর্বক আমাকেও ঠিক তোমারই স্বরূপ অতি অধমে রূপান্তরিত করিতে চাহিতেছ। আমি অতি অধম না হইলে তুমি আমাকে কৌশলে এই ইহলোক হইতে পরলোকে পাঠাইয়া দিবে। সেইহেতু আমি মৃত্যুলোকবাসীনি না হইবার কারণ বসত তোমাকে সন্তুষ্ট করিবার হেতু মিথ্যা অভিনয় করিয়া তোমাকে দৃশ্য করাইয়া চলিতেছি যে আমিও তোমার স্বরূপই অতি অধমে পরিণত হইয়াছি। বাস্তবিকই তোমার প্রচেষ্টা সার্থক হইয়াছে। আমি আর পূর্বের ন্যায় অতি উত্তম নহি। কিন্তু তুমি কদাপি বুঝিতে পার নাই যে আমি প্রাণে বাঁচিয়া থাকিবার নিমিত্ত তোমার সম্মুখে এইরূপ মিথ্যা, নকল অভিনয় করিতেছি। আদৌই আমি অধম হই নাই। পূর্বে যেইরূপ অতি উত্তম ছিলুম অদ্যাপি ঐরূপই বিদ্যমান রহিয়াছি। কেবলমাত্র একটি নকল আবরণ ধারণ করিয়াছি। নতুবা অকালে তোমার হস্তে আমার প্রাণ বিসর্জিতা হইত। তদপেক্ষা ইহা অধিকতর সঠিক পথ বলিয়া আমা কতৃক ইহা বিবেচিতা।