পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমারের ছেলে রকির হাতে ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ডের মেডেল ও শংসাপত্র

নিজস্ব প্রতিনিধি :

“সফলতা নয় উজানের কৈ, সে তো অমাবস্যার চাঁদ, সফলতা আসে অধ্যবসায়ে কঠোর শ্রমে দিন রাত ” এই সুরেই সুরভিত ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ড জয়ী নন্দকুমারের সেখ আমেদুল্লা ওরফে রকি। নন্দকুমার হাই রোড পার্শ্ববর্তী হাঁসগেড়িয়া গ্রামে বাড়ি রকির ।রকি একদিকে অভিনেতা, নির্দেশক ও অন্যদিকে সমাজকর্মী,পরিবেশ কর্মী ৷ এককথায় বহুমুখী প্রতিভাসম্পন্ন ছেলে রকি ৷ প্রায় ১০-১১ বছর ধরে সমাজকর্মী ও পরিবেশ কর্মী হয়ে কাজ করে চলেছেন রকি৷ সেই সুবাদে ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ডে রকির নাম নথিভুক্ত হয়েছে। রকি সমাজের অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে থাকা এক স্বপ্নের ফেরিওয়ালা৷ নন্দকুমার থিয়েটার গ্রুপের কর্ণধার ও সম্পাদক হিসেবে কর্মরত তাছাড়া একাধিক পদে নিযুক্ত রকি। সাথে সবুজ বাঁচানো তার নেশা। রকি ছোটোবেলা থেকেই অসহায় ও দরিদ্র মানুষের সাথে ও পাশে থেকে কাটিয়েছে বেশ কয়েকটি বছর ।ফোনে অসহায় মানুষের করুন কষ্টের খবর আসা মাত্রই কখনো কখনো খাওয়ার থালা ছেড়ে দিনরাত এক করে মানুষের পাশে থেকেছে রকি ৷ গত লকডাউন এবং বন্যা পরিস্থিতিতে রকি ও তার বন্ধুরা মিলে নন্দকুমার ও নন্দকুমারের বাইরে গিয়েও বেশকিছু এলাকায় এলাকায় চাল, ডাল,সোয়াবিন,সাবান,মাস্ক,স্যানিটাইজার,ঔষধ, অক্সিজেন সিলিন্ডার, বিস্কুট ও শিশুদের বেবি ফুডও তুলে দিয়েছে বন্যাকবলিত, লকডাউনে ঘরবন্দী পরিবার ও অসুস্থ মানুষের হাতে৷
রকি ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ড ও আন্তর্জাতিক সহ একাধিক সম্মানে সম্মানিত হয়েছে।
রকির বাবা ও মা জানান , ছেলের এমন সাফল্যের জন্য পুরো পরিবার আনন্দিত ৷ এছাড়াও বলেন , আমার ছেলে রকি মঞ্চে অভিনয়ের পাশাপাশি সমাজকর্মী হয়ে কাজ করায় সবসময় আমরা ওকে সার্পোট ও সহযোগিতা করতাম ৷ আমরা চাই আমার ছেলে রকি আরো এগিয়ে যাক৷ পূর্ব মেদিনীপুরের নাম উজ্জ্বল করুক ৷পরিশেষে ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ড জয়ী রকি নিজেই বলেন , এই রেকর্ড বা সাফল্যের পেছনে আমার মা ও বাবার পাশাপাশি সহযোগি বন্ধু-বান্ধবী , দাদা-দিদি ও আমার কাছের ব্যক্তিবর্গদের ভূমিকা অপরিসীম। উনারা না সহযোগিতা করলে আজ এই রেকর্ড বা সাফল্য আমার হাতে এসে পৌছাত না৷ তাই উনাদের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা জানাই ৷এছাড়াও রকি বলেন , আমি মানুষের হয়ে কাজ করায় এই সাফল্য ৷ আমি এই রেকর্ড করায় আমার পরিবারের পাশাপাশি এলাকাবাসীও ভীষন খুশি হয়েছে ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেও অনেকেই ৷ তাই আমি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ যে সমাজের অসহায় ও দরিদ্র মানুষের সাথে ও পাশে থেকে আরো কাজ করতে চাই। আমার একাধিক সম্মানের পাশাপাশি ইন্ডিয়ান বুকে রেকর্ডে নাম নথিভুক্ত হয়েছে। আমার পরবর্তী লক্ষ এশিয়া বুক অফ রেকর্ড ও গিনেস বুক অব রেকর্ড গড়া। আমরা সকলেই পারি সুস্থ সমাজ গড়ে তুলতে। তাই চলুন আমরা সকলে হাতে হাত রেখে একা নয়, দলবদ্ধ হয়ে সমাজসেবী না হয়ে সমাজকর্মী হয়ে ও পরিবেশকর্মী হয়ে কাজ করি ৷

Spread the Kabyapot

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *