তুমি সেজেছিলে
আবু সাঈদ
শেরপুর সদর শেরপুর
(বাংলাদেশ)


পহেলা জানুয়ারি ২০২২ দিনটিতে মোনালী তুমি সেজে ছিলে।
সে দিন তুমি ছিলে আমার চোখে অনন্যা সুন্দরী রূপসী!
যেন সুদক্ষ কারিগড়ের হাতে তুলির ছোঁয়ায় আলতো পরশে দরদ মাখা এক নিখুত প্রতিমা।
মাথায় দীঘল কালো কেশে গোলাপ ও সাদা চন্দ্র মল্লিকায় তাজা ২৩ ফুলের খোঁপা তোমাকে করেছিলো আরো অনন্য! যেন ঘুটঘুটে অন্ধকারে সাদা চন্দ্রমল্লিকা পূর্ণিমা চাঁদের মতো আলো দিচ্ছে, লাল গোলাপ যেন রাতের আঁধার ভেদ করে সূর্যের মতো জ্বলজ্বল করছে।
তোমার মায়াবী চোখে কালো কাজল যেন হরিণের মায়াবী চোখকেও হার মানিয়েছে। ভ্রুদ্বয়ের মাঝের কালো বিন্দু টিপ যেন তোমার চাঁদ মুখটাকে আরো সুশ্রী করে তুলেছে,তোমার চোখে মোটা ফ্রেমের চশমা তোমাকে করে তুলেছিলো আরো হৃদয়গ্রাহী। তোমার পাগল করা ঠোঁটে দেয়া হালকা গোলাপী লিপিস্টিক তোমাকে করে তুলেছে আরো অনন্য।গাঁয়ে জড়ানো হালকা পাতলা গোলাপী শাল তোমার সৌন্দর্যের মাধূর্যতা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে,আমি সে দিন দেখেছি তোমার সাঁজসজ্জার নিপুনতা, নিখুন সাঁজের দক্ষতা। লাল আঁচলের নীল শাড়ী সাথে স্বর্ণালী ব্লাউজ, সিথীতে নীল টিকলী,হাতে নীল রেশমী চুড়ি ও স্বার্নালী ঘড়ি তোমাকে করে তুলেছিলো আরো রূপসী। শাড়ীর সাথে রেশমী চুড়ি আর সিঁথির টিকলীর মেলবন্ধন ছিলো তাক লাগানো, হালকা গোলাপী রঙের ঠোঁটের সাথে গায়ের শালের মিল ছিলো মনোমুগ্ধকর।
স্বর্ণালী ব্লাউজের সাথে স্বর্ণালী ঘড়ির বন্ধুত্ব ছিলো নজরকাড়া। পায়ে হালকা উঁচু কালো জুতা তার সাথে কালো পায়েল তোমাকে করে তুলেছিলো আরো অপরূপা। তোমার হাতে রজনীগন্ধা ফুলের স্টিক যেন তোমার সৌন্দর্যের পরিপূর্ণতা এনে দিয়েছে।
আমি সে দিন তোমাকে বার বার দেখেছি মুগ্ধ হয়েছি! যতই দেখেছি ততই হারিয়ে গিয়েছি তোমার মাঝে। আমি দেখেছি সে দিন পৃথিবীর সব সৌন্দর্য তোমার মাঝে লুকিয়ে ছিলো। আমি দেখেছি তোমার হাসির ফাঁকে মুক্তা ঝরতে।


আমি দেখেছি তোমার যৌবনে প্রেম তরঙ্গের ঢেউ খেলছে। আমি দেখেছি সে দিন তোমার চোখে মুখে স্বর্গসুখের পূর্ণতা।
তুমি সত্যিই সে দিন ছিলে লিঁও দ্যা ভিঞ্চি জগদ্বিখ্যাত শিল্প কর্ম মোনালিসাকেও হার মানানো এক অপরূপ চোখ ধাঁধাঁনো মায়াবিনী মোনালী।আমি লুকিয়ে দেখি বার বার দেখি আর ভাবি
তুমি এতো রূপসী হবেই না কেন?
তুমি যে আমার হৃদয়ের মোনালী। আমার প্রাণের স্পন্দন। তুমি যে আমার মোনালী তাই এতো সুন্দরী।
(উৎস্বর্গঃ প্রিয় মোনালিসা মনা)


78970cookie-checkতুমি সেজেছিলে- আবু সাঈদ
Spread the Kabyapot

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *