Spread the love

রণং দেহি
-সোনালী মীর

নেতার মাথা করছে ব‍্যাথা,একঘেয়েমি সয় না
দেশটা ভীষন শান্ত এখন,যুদ্ধ কেন হয় না
যুদ্ধটা খুব দরকারি
পানসে লাগে তরকারি
রক্ত নেশা বাড়ছে ক্রমে,রাতেও ঘুম ঠিক হয় না।

মাঝে মাঝেই বিগড়ে ওঠে নেতার দলের রসনা
চুকচুকিয়ে শমন পাঠান,করেন হঠাৎ ঘোষনা;
বিধিনিষেধ জারি করে
আমজনতার হাড্ডি চিরে
পিটায় ঢোল;দাঙ্গা বোল।হাঙ্গামা হোক চনমনা।

হাঙ্গামা তো লেগেই থাকে পূর্ব থেকে পশ্চিমে
মাঠের মাঝে লোক জুটিয়ে শোনায় নেতা বক্তিমে
বার্তা শুনে কাদা জলে
লুঙ্গি ধুতি কাছা ভুলে
খুঁড়ছে মানুষ নিজের কবর।দোষ খুঁজছ আফিমে?

ধম্ম জুড়ে রাজনীতিতে টানছে আফিম পান্ডা
মিডিয়া জুড়ে বেহায়া সুরে চলছে বাক্ বিতন্ডা
কথার পিঠে বাড়ে কথা
কে বোঝে কার মুন্ডু মাথা
মিচকে হেসে সাইকো নেতা নাচেন ধরে ঝান্ডা।

================================

About the poet:
Sonali Mir(Sahanaj Sammi), Nowda, Murshidabad, W. B., India, is a poet and Teacher. Originally in English and Bengali. exposes versatile atmosphere in poem. Studied English honours Bahrampur Girl’s College.. M. A. from Rabindrabharati University.

Presently working as an assistant Teacher. Also the Editor of a magazine named “Prampora” (পরম্পরা)

One thought on “কবিতা – রণং দেহী – সোনালী মীর”
  1. সোনালি মীরের লেখা কবিতাটি যেমন সুখপাঠ্য তেমনই অর্থবহ ও প্রাসঙ্গিক। খুব ভালো লাগলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You missed

পুনরাবৃত্তি ©অঞ্জলি দে নন্দী, মম আমার বয়স তখন অধিক নহে। বিদ্যালয়ের নিম্ন শ্রেণীর ছাত্রী। বঙ্গ ভাষায় পাঠ্যরূপে সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায় মহাশয়ের কপালকুণ্ডলার কিয়দংশ পাঠ করান হইত। আমি শ্রেণীর খুব মেধাবিনী পঠিয়ত্রী ছিলুম। আমি প্রথম স্থান অধিকার করিয়া প্রত্যেক বৎসর ঊর্ধ্ব শ্রেণীতে গমন করিতুম। ঐ পাঠ্যের এক পত্রে বঙ্কিমচন্দ্র মহাশয় কতৃক লিখিত হইয়াছিল, ” তুমি অধম তাই বলিয়া আমি উত্তম না হইব কেন? ” পাঠ্যে ওই অংশটির নাম ছিল, ‘সাগর সঙ্গমে নবকুমার’। যাহা হউক- আমার চিত্তে এই বাক্যটি গভীরভাবে রেখাপাত করিয়াছিল। আমার সহিত উক্ত সময় নবকুমার বাবুর সহিত যেইরূপ ঘটিয়াছিল ঐরূপ কিছু ঘটিলে আমি তাহাকে ঠিক ঐরূপভাবেই গ্রহণ করিতুম। কিন্তু এই সময়ে আমি উহাকে পরিবর্তীত করিয়া লইয়াছি। এইরূপে – তুমি অতিশয় অধম সেইহেতু বলপূর্বক আমাকেও ঠিক তোমারই স্বরূপ অতি অধমে রূপান্তরিত করিতে চাহিতেছ। আমি অতি অধম না হইলে তুমি আমাকে কৌশলে এই ইহলোক হইতে পরলোকে পাঠাইয়া দিবে। সেইহেতু আমি মৃত্যুলোকবাসীনি না হইবার কারণ বসত তোমাকে সন্তুষ্ট করিবার হেতু মিথ্যা অভিনয় করিয়া তোমাকে দৃশ্য করাইয়া চলিতেছি যে আমিও তোমার স্বরূপই অতি অধমে পরিণত হইয়াছি। বাস্তবিকই তোমার প্রচেষ্টা সার্থক হইয়াছে। আমি আর পূর্বের ন্যায় অতি উত্তম নহি। কিন্তু তুমি কদাপি বুঝিতে পার নাই যে আমি প্রাণে বাঁচিয়া থাকিবার নিমিত্ত তোমার সম্মুখে এইরূপ মিথ্যা, নকল অভিনয় করিতেছি। আদৌই আমি অধম হই নাই। পূর্বে যেইরূপ অতি উত্তম ছিলুম অদ্যাপি ঐরূপই বিদ্যমান রহিয়াছি। কেবলমাত্র একটি নকল আবরণ ধারণ করিয়াছি। নতুবা অকালে তোমার হস্তে আমার প্রাণ বিসর্জিতা হইত। তদপেক্ষা ইহা অধিকতর সঠিক পথ বলিয়া আমা কতৃক ইহা বিবেচিতা।