নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ 
————————————————
    ঋদেনদিক মিত্রো (কলকাতা,  ভারত )  

[ Nobi Hazrat (SAW) kare Deachen Bansh, ( In English : “To Whom Did The Prophet give Bamboo”,  )  a Bengali poem on Prophet Hazrat Muhammad.: by  Ridendick Mitro,  India ]

[ Light in the dark is the act of religion, 
Otherwise everything is a
                             devil’s passion. 
                       — Ridendick Mitro ]

জ্ঞান,  সতর্কতা,  সৎ সাহস — এই তিন, 
যাদের থাকেনা তারা সব ধর্মহীন ! 
যারা নয় চিন্তা ও কর্মে নিরপেক্ষ, 
তারা হলো কোনো না কোনো
                       ভুলের ক্রীতদাস, 
                          এইটাই সত্য !

এথা সেথা যাওয়াতে
           চারিদিকে হাওয়াতে —
রটিতেছে চারিপাশ, 
ইসলাম মানে নাকি সন্ত্রাস,  
তাই তো মুসলমান —
    ভয়ের কারণ হয়, 
         ছড়াচ্ছে কারা এই বিশ্বাস? 

আমি বলি,
নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ? 

অনন্তকালে কে বা থাকবে কোথায়? 
কে বা কোন জাত ধর্ম পরিচয় পায় !
সবাই মানুষ জাতি রূপে গুণে প্রাণে, 
দুটি চোখ বুজলেই আঁধার নামে,  
সবাই হারিয়ে যাই চিতা বা কবরে, 
ধর্ম জাত নিয়ে কেন একে অপরে —
        করিস অত্যাচার,  যত সর্বনাশ, 
বল ভাই, 
নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ? 

নবী যবে আসেন নি এই পৃথিবীতে —
তখন কি মিথ্যাচার ও শয়তানি 
                     ছিলোনা চারদিকে?  

যে-স্থানে নেই মুসলমান, 
সেখানে যদি সবাই মহান —
দেশে -দেশে এতো খুনখারাপি, 
    আগ্রাসনের নেশায় করে দাপাদাপি, 
     খেলে যায় কূট চালাকির তাস, 
বল ভাই, 
নবী হযরত ( সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ? 

অমুসলমান যারা — তাদের ঘরে —
কেন বা এ-তার সাথে অভিনয় করে ! 
কেন  তারা করে বল এতো হাহুতাশ, 
বল ভাই, 
নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ? 

শিক্ষাকে দুর্বল তোরা করছিস,  
রাজনীতি করে তোরা
      নিজেরা-নিজেরা মিলে
                       মারছিস,  মরছিস !

মামলা, ঘুষ, জালিয়াতি, ভেজাল,
           নেশা, সুদ, অপহরণ, ও লুট, 
সেই সাথে চাটুকারী স্বভাবকে ভাবছিস সুখ,.
তোরাই  তো নিজেরাই নিজেদের মৃত্যুর ফাঁস, 

বল ভাই, 
নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ? 

দরিদ্র অসহায় গৃহকর্মীকে —
অশান্তি করে মারিস দিন রাত্রিতে, 

কলকারখানায় কর্মীদের কাজ করিয়ে
            চাস না ঠিক বেতন দিতে ! 

ঈশ্বরকে ডাকিস শুধু নিজ স্বার্থে, 
তোরাই বলিস আবার
       বিশ্বের কল্যাণ তোদেরই তো হাতে,  

পৃথিবীর সব সুন্দর মন এক সত্যে জাগি, 
মিথ্যাচার,  হিংসার বিরুদ্ধে কাঁদি, 
পশু,  পাখি,  কীট, বৃক্ষ,  সকলের প্রতি,  
যারাই দরদী হয়,
                তারা ধার্মিক, তারা প্রগতি !

তৈরী করা হিংসা ও প্রতিহিংসায়
                             বিশ্ব হলে শেষ, 
কোথায় থাকলো তোর জাত, ধর্ম, দেশ?

আয় তো সকলে এক হয়ে —
নিজেরা মানুষ বলে
                  দাবী করি এক পরিচয়ে !

কেউ তোরে বলেনি যে — মুসলমান হ, 
নিজেকে মানুষ বলে তুই শুধু  ক,
একবার ভেবে দেখ নিজেদের ছবিটা —.
   লজ্জায় কেঁদে-কেঁদে
                      ফেলবি রে দীর্ঘশ্বাস, 

বল ভাই, 
নবী হযরত (সঃ ) কারে দিয়েছেন বাঁশ?.

ভাই সব, ছুঁড়ে ফেল সব ইতিহাস, 
পূর্বে কারা কার প্রতি করেছে আগ্রাসন, 
              অত্যাচার আর সন্ত্রাস,  
সেটা তো তাদের ইচ্ছে, অজ্ঞতা বা আক্রোশ, 
  সেজন্য বল ভাই তোর আমার কী বা দোষ? 

এই সাধারণ সত্যটুকু বুঝিনা তো আমরা, 
   তবুও ” মানুষ ” বলে  করি কেন দাবী? 
ধর্মের নাম কখনো পারেনা হতে — কারসাজি ! .
চলে যাবে সব দীর্ঘশ্বাস, 
যদি গড়ি আমরা নতুন সভ্যতার নতুন ইতিহাস !

————————————–


  ( 17:58 রাত্রি,  31অক্টোবর,  1 নভেম্বর সকাল,  2020,  Ridendick Mitro,  India )

অনুরোধ:–  যেকোনো রকমের প্রতারণা ও আগ্রাসন ও সভ্যতার প্রতি দায়িত্বজ্ঞানহীনতা কোনো ধর্মের মধ্যে পড়ে না,  সেটা যে-পরিচয় নিয়ে যারাই করুক !  — কবি

বিঃদ্রঃ :- ঋদেনদিক মিত্রো,  ভারত,  [Ridendick Mitro,  India (Bharat) ],  পেশায় ইংরেজি ও বাংলাভাষার কবি-ঔপন্যাসিক-নিবন্ধকার-গীতিকার,   সংগীত ” world anthem — we are the citizen of the earth “,     ” corona anthem 2020 official bengali song ” ( আগ্রাসনের নেশার সাথে হিংসা সীমাছাড়া ),  sristi brand song (সৃষ্টি সংস্থার ব্র্যান্ড সঙ –” আমরাই সৃষ্টি আমরাই দৃষ্টি ” ), ও  ” বাংলাদেশ চিত্র ” (www.bdchitro.com )  সংবাদ মাধ্যমের ব্র্যান্ড গীতিকবিতা,   প্রভৃতি বিশেষ ধরণের সংগীতের /গীতিকবিতার লেখক !  2020 করোনা অতিমারীর সমস্যার জন্য অনেক গ্রন্থ বেরুতে দেরি হচ্ছে !  প্রকাশিত, পৃথিবীর সমস্ত দেশের ওপর ইংরেজিতে গীতিকবিতা সংকলন আছে ” Anthem-poem on all the independent nations (199 দেশের ওপর লেখা ),  এছাড়া বিবিধ আন্তর্জাতিক বিষয়ের ওপর অনেক রকমের কবিতার গ্রন্থ রয়েছে বিবিধ প্রকাশনী থেকে,  যে-ধরণের idea পৃথিবীতে প্রথম এই কবির কাজ, ও পরে নতুন করে কারোর দ্বারা নির্দিষ্ট ওই প্রজেক্ট গুলি করা সম্ভব নয় ! সবই সরকারী রেজিস্ট্রিকৃত গ্রন্থ !  একক ভাবে কোনো-কোনো দেশের ওপর গ্রন্থও রয়েছে ইংরেজিতে,  2017 এ কলকাতা আন্তর্জাতিক বই মেলায় ফোকাল বা থিম কান্ট্রি ( মূল আমন্ত্রিত দেশ ) ল্যাটিন আমেরিকার স্প্যানিশ ভাষি দেশ কোস্টারিকা-র প্যাভিলিয়নে  কবির ” Costa Rica,  My Darling “,  ও 2020 তে এই বই মেলায় ফোকাল কান্ট্রি ছিল রাশিয়া,  ওই প্যাভিলিয়নে প্রকাশ হয়েছিল ” A book of poems on Russia “.  ওই বই গুলি ওদের দেশের প্রতিনিধিরাই উদ্বোধন করেছেন !

🌾 কবির বক্তব্য হলো মানুষ বিভিন্ন ধর্মগুরুদের বিরুদ্ধে মতামত দেবার ক্ষেত্রে ব্যাস্ত না থেকে সকলের উচিত জ্ঞানী,  সৎ সাহসী ও সুস্থ জীবন যাপন করার অভ্যেসে প্রবেশ করা !  আর এটাই প্রকৃত ধর্ম পালন,  কারণ এই পদ্ধতি পুরো মানবজাতিকে ও সকল জীবপ্রকৃতিকে সুস্থ থাকতে  সাহায্য করবে,   তা না করে কেবল একজন নাগরিক আর একজন নাগরিকের ধর্মগুরুর প্রতি অশ্রদ্ধা সূচক মতামত দিয়ে নিজেকে গঠন করার ক্ষেত্রে অন্যমনস্ক হয়ে যাচ্ছে,  এবং এই ভুল পদ্ধতিতে সারা পৃথিবী বিপর্যস্ত !  এই বিপর্যস্ত অবস্থা থেকেই পৃথিবীকে বের করে আনতে এই কবিতা লিখেছেন কবি ! এই কবিতা দিয়ে কবি কোনো ধর্মকে বড় বা ছোট বলেন নি,  বরং এটাই বোঝাতে চেয়েছেন যে,   আমরা ধর্মের পরিচয়ে মানুষের বিচার করতে গিয়ে একে অপরকে বিপন্ন করছি নানা ভাবে,  এবং বিপন্ন করার পথ কখনোই সুস্থতা আনতে পারেনা ! বিষয়টি ও ভাবনাটি কবির নিজস্ব,  কবির লেখার উদ্দেশ্যের নিরপেক্ষতার ভিত্তিতে কবিতাটি প্রকাশ করা হলো ! আশা করি,  কোনো পাঠক বিপরীত দৃষ্টিভঙ্গিতে লেখাটাকে  নেবেন না !  


The Poet claims that man abuse one another being a fundamental mind  on Religious  part,  and it is not the way for peace.  Man should take a step accepting deep knowledge,  good quality,  open mindedness,  fresh dream,  love to every creature,  and this practice must change our harmful nature in livlihood.  It is the way for peace.  But,  when man denying it fight or abuse one another depending on their religious fundamentalism,  it is a part of shocking ideas.   Poet Ridendick Mitro wrote this poem expressing this theme logically into tearful waves in the poem body.  

The Editor releases this Poem with neutral sense to  the readers  : Editor

[ কবিতাটি সম্পূর্ণ কবির নিজস্ব ভাবনার উপরে ভিত্তি করে রচিত। ]


       

Spread the Kabyapot