Spread the love

————//————

ও পাড়ার কালুদা, তার 

প্রতিদিন খাওয়া চাই মার। 

থাকার জায়গা নেই ,কিন্তু 

ঘরে পোষে একগাদা জন্তু। 

পাটনায়ে এক ছাগল ছিল, রোজ 

লাগতো কিনা বিরিয়ানির ভোজ।

পাঁচ কিলো চাল সকালবেলায় 

চিবিয়ে খেতো হেলাফেলায় ।

মাঠে গেলে এমন ঢ্যাঁটা 

ঘাস খেত না দুষ্টু ব্যাটা।

ছোট্ট ঘরের কোণে, যদি 

বলতো শুতে, লাগতো গদি। 

এ সব শুনে হাবুল কাকা 

চুলগুলো তার কাঁচাপাকা। 

বললে এসে হেসে হেসে 

শোন্ কালু সর্বনেশে।

ওষুধ আমি দিতে পারি, তবে 

খরচা আছে বললে হবে। 

চুলকে টিকি বুদ্ধি খেঁটে 

জালতি মুখে দিল এঁটে ।

থাক পড়ে থাক দড়ি বাঁধা

ঘোড়া করি পিটিয়ে গাধা। 

এ তো সামান্য ছাগল, ধুর 

শোন, আমি হলাম মস্ত বাহাদুর। 

তিনদিন পর জালতি খানা 

যেই না খোলে, ছাগল ছানা 

হাঁই হাঁই করে চিবোয় মাঠের ঘাস 

নে শিখে নে পাটনা-ছাগল চাষ।

————————–//——————

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *